বেদ কাকে বলে ? - Ask Answers
Ask Answers এ আপনাকে স্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং সাইটের অন্যান্য সদস্যদের কাছ থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

173 বার দেখা হয়েছে
"হিন্দু ধর্ম" বিভাগে করেছেন অভিজ্ঞ সদস্য

1 উত্তর

0 জনের পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন নিবন্ধিত সদস্য
বেদ হিন্দুদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ। ‘বেদ’ শব্দের ব্যুৎপত্তিগত অর্থ জ্ঞান। যার অনুশীলনে ধর্মাদি চতুর্বর্গ লাভ হয় তা-ই বেদ। প্রচলিত বিশ্বাস অনুযায়ী বেদকে অপৌরুষেয় অর্থাৎ ঈশ্বরের বাণী বলে মনে করা হয়। এটি কতগুলি মন্ত্র ও সূক্তের সংকলন। বিশ্বামিত্র, ভরদ্বাজ প্রমুখ বৈদিক ঋষি জ্ঞানবলে ঈশ্বরের বাণীরূপ এসব মন্ত্র প্রত্যক্ষ করেন। তাই এঁদের বলা হয় মন্ত্রদ্রষ্টা। মন্ত্রদ্রষ্টা ঋষিদের মধ্যে বেশ কয়েকজন মহিলাও ছিলেন, যেমন বিশ্ববারা, লোপামুদ্রা প্রভৃতি।

বেদের এক নাম শ্রুতি। এর কারণ, লিপিবদ্ধ হওয়ার আগে দীর্ঘকাল বেদ ছিল মানুষের স্মৃতিতে বিধৃত। গুরুশিষ্য পরম্পরায় শ্রুতি অর্থাৎ শ্রবণ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বেদ আয়ত্ত করা হতো। যেহেতু শোনা বা শ্রুতির মাধ্যমে প্রক্রিয়াটি ঘটত তাই এ থেকে বেদের এক নাম হয় শ্রুতি।

বেদকে ত্রয়ীও বলা হয়। এর কারণ, বেদের  মন্ত্রগুলি আগে ছিল বিক্ষিপ্ত অবস্থায়। ব্যাসদেব যজ্ঞে ব্যবহারের সুবিধার্থে মন্ত্রগুলিকে ঋক্, যজুঃ, সাম এই তিন খন্ডে বিন্যস্ত করেন। তাই বেদের অপর নাম হয় সংহিতা। বেদ চারখানা হলেও চতুর্থ অথর্ববেদ  অনেক পরবর্তীকালের রচনা এবং এর কিছু কিছু মন্ত্র প্রথম তিনটি থেকেই নেওয়া হয়েছে। তাছাড়া যজ্ঞে এর ব্যবহার নেই। অবশ্য বেদকে ত্রয়ী বলার অন্য একটি কারণও আছে এবং তা হলো: এর মন্ত্রগুলি মিতত্ব, অমিতত্ব ও স্বরত্ব এই তিনটি স্বরলক্ষণ দ্বারা বিশেষায়িত, যার ওপর ভিত্তি করে মন্ত্রগুলিকে উপর্যুক্ত তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে।

বেদের রচনাকাল সম্পর্কে অনেক মতভেদ আছে। এ নিয়ে প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য পন্ডিতদের মধ্যে বিস্তর মতপার্থক্যও দেখা যায়। উল্লেখ্য যে, বেদ  রচনার শুরু থেকে তা সম্পূর্ণ হতে বহুকাল সময় লেগেছে। সেই কালসীমা মোটামুটিভাবে খ্রিস্টপূর্ব ২৫০০-৯৫০ অব্দ পর্যন্ত ধরা হয়।

বেদের চারটি অংশ মন্ত্র বা সংহিতা, ব্রাহ্মণ, আরণ্যক ও  উপনিষদ্। মন্ত্রাংশ প্রধানত পদ্যে রচিত, কেবল যজুঃসংহিতার কিছু অংশ গদ্যে রচিত। এটাই বেদের প্রধান অংশ। এতে আছে দেবস্ত্ততি, প্রার্থনা ইত্যাদি। ঋক্ মন্ত্রের দ্বারা যজ্ঞে দেবতাদের আহবান করা হয়, যজুর্মন্ত্রের দ্বারা তাঁদের উদ্দেশে আহুতি প্রদান করা হয় এবং সামমন্ত্রের দ্বারা তাঁদের স্ত্ততি করা হয়। ব্রাহ্মণ মূলত বেদমন্ত্রের ব্যাখ্যা। এটি গদ্যে রচিত এবং প্রধানত কর্মাশ্রয়ী। আরণ্যক কর্ম-জ্ঞান উভয়াশ্রয়ী এবং উপনিষদ্ বা  বেদান্ত সম্পূর্ণরূপে জ্ঞানাশ্রয়ী।

বেদের বিষয়বস্ত্ত সাধারণভাবে দুই ভাগে বিভক্ত কর্মকান্ড ও জ্ঞানকান্ড। কর্মকান্ডে আছে বিভিন্ন দেবদেবী ও যাগযজ্ঞের বর্ণনা এবং জ্ঞানকান্ডে আছে ব্রহ্মের কথা। কোন দেবতার যজ্ঞ কখন কীভাবে করণীয়, কোন দেবতার কাছে কী কাম্য, কোন যজ্ঞের কী ফল ইত্যাদি কর্মকান্ডের আলোচ্য বিষয়। আর ব্রহ্মের স্বরূপ কী, জগতের সৃষ্টি কীভাবে, ব্রহ্মের সঙ্গে জীবের সম্পর্ক কী এসব আলোচিত হয়েছে জ্ঞানকান্ডে। জ্ঞানকান্ডই বেদের সারাংশ। এখানে বলা হয়েছে যে, ব্রহ্ম বা ঈশ্বর এক, তিনি সর্বত্র বিরাজমান, তাঁরই বিভিন্ন শক্তির প্রকাশ বিভিন্ন দেবতা। জ্ঞানকান্ডের এই তত্ত্বের ওপর ভিত্তি করেই পরবর্তীকালে ভারতীয় দর্শনচিন্তার চরম রূপ উপনিষদের বিকাশ ঘটেছে।

এসব ছাড়া বেদে অনেক সামাজিক বিধিবিধান, রাজনীতি, অর্থনীতি, শিক্ষা, শিল্প, কৃষি, চিকিৎসা ইত্যাদির কথাও আছে। এমনকি সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন জীবনের কথাও আছে। বেদের এই সামাজিক বিধান অনুযায়ী সনাতন হিন্দু সমাজ ও  হিন্দুধর্ম রূপ লাভ করেছে। হিন্দুদের বিবাহ, অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া ইত্যাদি ক্ষেত্রে এখনও বৈদিক রীতিনীতি যথাসম্ভব অনুসরণ করা হয়।ঋগ্বেদ থেকে তৎকালীন নারীশিক্ষা তথা সমাজের একটি পরিপূর্ণ চিত্র পাওয়া যায়। অথর্ববেদ থেকে পাওয়া যায় তৎকালীন চিকিৎসাবিদ্যার একটি বিস্তারিত বিবরণ। এসব কারণে বেদকে শুধু ধর্মগ্রন্থ হিসেবেই নয়, প্রাচীন ভারতের রাজনীতি, অর্থনীতি, সমাজ, সাহিত্য ও ইতিহাসের একটি দলিল হিসেবেও গণ্য করা হয়।

এ রকম আরও কিছু প্রশ্ন

0 টি উত্তর
15 জুন 2019 "হিন্দু ধর্ম" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Aman অভিজ্ঞ সদস্য
1 টি উত্তর
25 সেপ্টেম্বর 2019 "হিন্দু ধর্ম" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাতকুলশীল
1 টি উত্তর
1 ঘন্টা পূর্বে "পদার্থবিদ্যা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Bodrul Alom নতুন সদস্য
1 টি উত্তর
1 ঘন্টা পূর্বে "পদার্থবিদ্যা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Bodrul Alom নতুন সদস্য
1 টি উত্তর
9 ঘন্টা পূর্বে "জীব বিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Bodrul Alom নতুন সদস্য
1 টি উত্তর
10 ঘন্টা পূর্বে "জীব বিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Bodrul Alom নতুন সদস্য
1 টি উত্তর
15 ঘন্টা পূর্বে "জীব বিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Bodrul Alom নতুন সদস্য
1 টি উত্তর
15 ঘন্টা পূর্বে "জীব বিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Bodrul Alom নতুন সদস্য
1 টি উত্তর
16 ঘন্টা পূর্বে "জীব বিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Bodrul Alom নতুন সদস্য
1 টি উত্তর
16 ঘন্টা পূর্বে "জীব বিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Bodrul Alom নতুন সদস্য

5,816 টি প্রশ্ন

5,442 টি উত্তর

102 টি মন্তব্য

236 জন সদস্য

আস্ক অ্যানসারস বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি অনলাইন কমিউনিটি। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করতে পারবেন ৷ আর অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে অবদান রাখতে পারবেন ৷

জনপ্রিয় প্রশ্নসমূহ (গত 30 দিন)

  1. এম এম কিট খাওয়ার পর মিনস হয়ে আবার একদিন পর বন্ধ হয়ে গেছে। এখন কি করতে হবে?
  2. MM Kit খাওয়ানোর পর রক্ত বন্ধ হচ্ছে না কেন?
  3. এম এম কিট খেয়েছি প্রেগন্যানসি টেস্ট ছাড়াই, মাসিক কি হবেনা?
  4. একটি স্কুলে ছাত্রদের ডিল করবার সময় ৮, ১০ এবং ১২ সারিতে সাজানো যায়। আবার বর্গাকারেও সাজানো যায়। ঐ স্কুলে কমপক্ষে কত জন ছাত্র আছে?
  5. আস্ক অ্যানসারস অতিক্রম করলো পাঁচ হাজার প্রশ্নোত্তরের এক বিশাল মাইলফলক?
  6. প্রেগন্যানসি টেস্ট না করেই এম এম কিট খেয়েছি৷ এতে কোন সমস্যা হবে কি? মাসিক কি হবেনা?
  7. আমার তো ১০০০ পয়েন্ট হয়ে গেছে এবং এ মাস ও শেষ আজকে। আমি এখন ১০০ টাকা পাব তো। এবং তা কামনে কতৃপক্ষ আমাকে খুব দ্রুত জানান।?
  1. রাকিবুল

    5057 পয়েন্ট

    921 টি উত্তর

    452 টি গ্রশ্ন

  2. রাফাত

    4014 পয়েন্ট

    605 টি উত্তর

    939 টি গ্রশ্ন

  3. Md Noor Alom

    1608 পয়েন্ট

    306 টি উত্তর

    64 টি গ্রশ্ন

  4. Kuddus

    404 পয়েন্ট

    73 টি উত্তর

    35 টি গ্রশ্ন

3 জন অনলাইনে আছেন
0 জন সদস্য, 3 জন অতিথি
আজকে ভিজিট : 247
গতকাল ভিজিট : 4680
সর্বমোট ভিজিট : 1211130
এখানে প্রকাশিত প্রশ্ন ও উত্তরের দায়ভার কেবল সংশ্লিষ্ট প্রশ্নকর্তা ও উত্তর দানকারীর৷ কোনপ্রকার আইনি সমস্যা Ask Answers বহন করবে না৷

করোনাঃ
বাংলাদেশে গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত ১,৫৪১ জন সহ (গতকাল ছিল ১,১৬৬ জন) মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩৮,২৯২ জন এবং নতুন করে মৃত্যু ২২ জন সহ সর্বমোট মৃত্যু ৫৪৪ জন এবং সুস্থ হয়ে ফিরেছেন সর্বমোট ৭,৮২৫ জন৷ * * * তাই করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে নিজের ঘরেই অবস্থান করি ৷ নিজে বাঁচি, নিজের পরিবারকে বাঁচাই এবং অন্যকে বাঁচার সুযোগ দেই৷ * * *
...